পুজো সারাংশ (Summary of Puja)

পুজোর এই চারটি দিন

মজায় কাটে রাত্রি দিন

কুমোরটুলির দূর্গা আসে

ভ্যান লরি বা চড়ে বাঁশে

সঙ্গে তার ওই ছেলেমেয়ে

ফ্যালফ্যালিয়ে দেখে চেয়ে

মায়ের সাথে মজা লোটে 

ভাগ্যে তাদেরও পুজো জোটে


ষষ্টিতে যখন হয় বোধন 

ঢাকে কাঠি পড়ে তখন

বায়না নিয়ে ঢাকি আসে

তাদের গাঁয়ের শিশু হাসে

বুড়োবুড়ি দেখে চেয়ে

বারান্দার ওই জানলা দিয়ে

পায়ের ব্যাথায় কাবু তারা

সিঁড়ি দিয়ে নামতে মানা


সপ্তমীতে মাঞ্জা দিয়ে

ছেলেরা সব ঠাকুর দেখে

মাটির দূর্গা না জ্যান্ত কালী 

ওরাই যেন চোখের বালি

রোল চাউমিন মোমোর ভিড়ে

তেঁতুল জলে আঁশ মিটিয়ে

মোবাইল ফোনে বার্তা যায়

মা ব্যাস্ত আমি ফুচকা খাওয়ায়


অষ্টমীর অঞ্জলীতে

দুটি মনের মিলন ঘটে

দূর্গা বুঝি হেসে ওঠে

অসুর বধও মর্তে ঘটে!

পুজোর পরে দুপুর বেলায়

ভোগের খিচুড়ি আর লাবড়ায়

পথের শিশুর হাসি ফোটে

পেট ভরা খাবার জোটে

সন্ধ্যি পুজোর ধুনুচি নাচ

সঙ্গ যে দেয় ঢাকের তাল

ধুনোর ধোঁয়ায় ভরে চারদিক

ল্যাংটা শিশু হাসে ফিকফিক


নবমীর বিকেল হলে 

মনটা কারো কেঁদে ওঠে

ঘরের কোনে খাটে বসে

একলা মা অশ্রু মোছে

বিলেত থেকে ব্যাস্ত ছেলে

জানিয়েছিল টেলিফোনে

পুজো তাদের আবাসনে

কাটবে পুজো তাই সেখানে


বিজয়ার  বাজনা উঠলো বেজে

দশমী যে এসে গেছে 

বরন করার ঘনঘটায়

দূর্গা মায়ের মুখ খোলা দায় 

সিঁদুর খেলে রঙিন হয়ে

রঙিন সুরায় বিভোর হয়ে 

উদ্দামতার শিখল ছিড়ে

আসছে বছরের দিন গোনে

মাটির মায়ের পুজো হয়

আসল মা যে ঘরেই রয়

ছোট্ট শিশু খিলখিলিয়ে

মায়ের কোলে মুখ লুকোয় 

No comments:

Post a Comment